উপকার

১০ জানুয়ারি , ২০২১ আমার সবচেয়ে প্রিয় প্রাণীর মধ্যে অন্যতম দুটি হল মৌমাছি এবং গুবরে পোকা। পরিবেশে দুটি প্রাণীরই গুরুত্ব অপরিসীম । কিন্তু এদেরকে যুগ যুগ ধরেই খাটো করেই দেখা হয়। কারণ হয়তো অনেক হতে পারে কিন্তু তাই বলে এদের কাজের মূল্য না দেওয়া তো অপরাধ!! মৌমাছি ও মানুষের সম্পর্ক হাজার বছর পুরানো। সেই প্রাচীন মিশর থেকে মানুষ মৌমাছি প্রতিপালন শুরু করে । কিন্তু বর্তমানের মানুষ প্রযুক্তিতে উন্নতির সাথে সাথে নিজের প্রাচীন বন্ধুকে ভুলে গেছে। মৌমাছি এক গাছের ফুল থেকে পরাগ অন্য গাছের ফুল পর্যন্ত নিয়ে গিয়ে ফল উৎপন্ন করতে ও গাছের বংশ টিকিয়ে রাখতে সাহায্য করে । অর্থাৎ বলা যেতেই পারেই যে মৌমাছি এ বিশ্ব থেকে হারিয়ে গেলে আমরা রোজকার অনেক ফলই পাবো না!

10 January 2021  ·  2 Minutes  ·  248 words

মেছো

১৬ জানুয়ারি , ২০২১ আমরা প্রায় সবাই জানি যে ভারতের (এবং বাংলাদেশের) জাতীয় পশু হল, বাঘের একটি উপপ্রজাতি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার বা বাংলার বাঘ। কিন্তু আমাদের বেশিরভাগই জানি না যে , আমাদের রাজ্য পশ্চিমবঙ্গেরও একটি রাজ্য পশু আছে - বাঘরোল বা মেছোবাঘ বা মেছোবিড়াল। এই প্রাণীটির অনেক নাম থাকলেও এটি স্থানীয়ভাবে বাঘরোল নামেই অধিক পরিচিত। বাঘরোল অনেকটা বিড়ালের মত দেখতে স্তন্যপায়ী প্রাণী। এরা সাধারণত নদীর ধারে , জলাভূমি বা ম্যানগ্রোভ অঞ্চলে বসবাস করে। এদের গায়ে চিতা বাঘের মত ছোপ ছোপ দাগ থাকায় অনেকেই এদেরকে চিতাবাঘ ভেবে ভুল করে। এরা সাঁতারে খুব পটু হয় , এদের পছন্দের খাবারও আবার মাছ, তাই এদের নাম মেছোবাঘ বা মেছো বিড়াল।

16 January 2021  ·  3 Minutes  ·  622 words

মৎস্যশাঁস

১৫ জানুয়ারি , ২০২১ প্রথম খণ্ডে আমি আলোচনা করেছিলাম , মাছ কিভাবে অবহেলিত ও নির্যাতিত। অন্যান্য জীবদের জন্যে আমরা যেভাবে সমব্যাথি হয় তার সিকিভাগও আমরা মাছেদের জন্য হইনা। আজকের দ্বিতীয় খণ্ডের আলোচনা শুরুর আগে আমাদের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করা উচিত - ইংরাজি শব্দ Flesh এর বাংলা প্রতিশব্দ কী? সংসদের ইংরাজি-বাংলা অভিধান অনুযায়ী এর বাংলা প্রতিশব্দ হল জীবদেহের মাংস যা সংক্ষিপ্ত হয়ে দাঁড়ায় শুধু মাংস! আবার যদি জিজ্ঞেস করি, Meat শব্দের বাংলা প্রতিশব্দ কী?

15 January 2021  ·  4 Minutes  ·  660 words

মৎস্যানুভুতি

১৪ জানুয়ারি , ২০২১ মাছ - নামটা শুনলেই অনেকের মনেই অনেক রকম ভাবনা মাথায় আসে যেমন সুস্বাদু খাবার , ঘর সাজানোর উপকরণ ইত্যাদি ইত্যাদি। তবে কারো মাথায় আসে না তারাও একটা প্রাণী। তাদেরও আমাদের মত দুঃখ, বেদনা ও অনুভূতি আছে। আমরা যেমন অন্যান্য মাংসজাতীয় খাবারের জন্য অন্তত সামান্যও সমব্যাথি হয় , তেমনটি মাছের ক্ষেত্রে সিকিভাগও হইনা। আমরা মানুষেরা মাছেদের সাথে নিজেদের কে এক সুত্রে মেলাতে পারিনা কারণ আমাদের মধ্যের ভিন্নতা - আমরা ডাঙ্গায় থাকি , ওরা জলে থাকে; আমাদের ফুসফুস আছে, ওদের ফুলকা আছে, আমাদের গায়ে লোম আছে , ওদের গায়ে আঁশ আছে প্রভৃতি প্রভৃতি। কিন্তু এখন যার কারো মনে হতেই পারে , আমাদের সাথে তো গরু , ছাগল , মুরগি এদেরও তো বিস্তর পার্থক্য তাহলে এদের সাথে আমরা নিজেদেরকে কিভাবে মেলাতে পারলাম?